ঢাকা শুক্রবার, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮, ৩০ জুলাই, ২০২১
Mukto Sangbad Protidin

প্রধানমন্ত্রী রিস্ক না নিয়ে ‘লকডাউন’ দিতে বলেছেন


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক: সোমবার, ১৪ জুন, ২০২১, ১০:৩৩
প্রধানমন্ত্রী রিস্ক না নিয়ে ‘লকডাউন’ দিতে বলেছেন
ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনা সংক্রমণ বাড়লে রিস্ক না নিয়ে সেই স্থান ব্লক (লকডাউন) করে দিতে। জাতীয় সংসদ ভবনে মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী সোমবার (১৪ জুন)  এ কথা স্মরণ করে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।
 
মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে একথা জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব।

করোনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কোনো নির্দেশনা আছে কিনা- প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে বলেন, উনি বলছেন যে, এখন থেকে বলে দাও সবাইকে। লোকাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন সবাইকে অথরিটি দিয়ে দেওয়া হলো। অলরেডি আমরা চিঠিতে বলে দিয়েছি। উনি আবার রিমাইন্ড করে দিতে বলেছেন। কোনো রকম রিস্ক না নিতে। যেখানে যারা কমফোর্টেবল মনে করবেন তারা সেখানে যেন ব্লক করে দিয়ে এটাকে থামানোর চেষ্টা করে।

কেন্দ্রীয় লকডাউন নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আছে কিনা-এ প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিববলেন, এটা নিয়ে এখনও কোনো আলোচনা নেই। এটা আরও দুই দিন সময় আছে। এটা কি বৃদ্ধি করা হতে পারে- এ প্রশ্নে তিনি বলেন, দেখা যাক কী হয়।
 
লকডাউনে সরকারি সব অফিস খোলা আছে- এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব ব্রিফিংয়ে বলেন, আমরা (লোকবল) ভাগ করে নিয়েছি। আমাদের অর্ধেকের বেশি আসে না।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, করোনা নিয়ে মোটামুটি আলোচনা হয়ে গেছে। মিটিং ছাড়াও আলাপ হয়। অলরেডি আমরা লোকাল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন বা লোকাল গভমেন্ট যারা আছেন বা আর্মড ফোর্সেস বা ‘ল’ এজেন্সিজ সবাইকে বলে দিয়েছি তারা স্থানীয়ভাবে বসে, যদি দেখেন কোনো এলাকায় বেশি হচ্ছে (সংক্রমণ) সেই এলাকায় ইমফোর্স করা, ট্রিটমেন্ট বেশি দেওয়া বা লকডাউন; যেটা তারা কমফোর্টেবল ফিল করবে সেভাবে। কারণ পুরো দেশ তো এখন একভাবে স্প্রেড করছে না।

সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, নর্থবেঙ্গলের দিনাজপুরের একটু বেড়েছে, যশোরে একটু কমেছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জে একটু কমে এসেছে। প্রধানমন্ত্রীসহ এটা সরকারেরই সিদ্ধান্ত, যদি উনারা মনে করেন কোনো এলাকা ব্লক করে দেবেন সেটা স্থানীয়ভাবে সবাই মিলে আলেঅচনা করে ব্লক করে দিতে পারবেন। চীন-রাশিয়ার টিকার বিষয়ে এক প্রশ্নে তিনি বলেন, আলোচনা চলছে, দেখা যাক। এটা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ব্রিফ করবে।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদঃ সংগ্রাম, সাফল্য ও গৌরবের মহানায়ক


ফেসবুক ডেস্ক:
রবিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২১, ০৭:৫০
মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদঃ সংগ্রাম, সাফল্য ও গৌরবের মহানায়ক

দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে তৃতীয়-বর্ষ পূর্ণ হ’ল! তিন বছর আগে দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ পাঠ করেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। মাননীয় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী তাঁকে ২০১৮সালের ২৪ এপ্রিল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবন দরবার হলে এ শপথ পাঠ করান। রাষ্ট্রপতি হিসেবে সাফল্য ও সম্মানের তিন বছর।তবে প্রথম মেয়াদ সহ আট বছর হ’ল। এদেশে রাষ্ট্রপতি হিসেবে আর কেউ এই হিরন্ময় গৌরব অর্জন করতে পারেননি। বিশ্বেও এমন সৌভাগ্যসুন্দর রাষ্ট্রপতি বিরল। এ আমাদের গর্বিত অহংকার।

মো.আবদুল হামিদ। কিংবদন্তীতুল্য রাজনীতিক। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ-সন্তান।গণমানুষের অকৃত্রিম বন্ধু। সতত সংগ্রাম ও সাধনায় অর্জন করেছেন বর্ণাঢ্য খ্যাতিদীর্ঘ জীবন। জন্মেছেন কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামইন উপজেলায় কামালপুর গ্রামের সম্ভ্রান্ত এক মুসলিম পরিবারে। তাঁর পিতার নাম হাজী তায়েব উদ্দিন আর মায়ের নাম তমিজা খাতুন। তাঁরা পাঁচ ভাই ও এক বোন।বোন ও ভাইয়েরা সবাই সমাজ-সম্মানিত ব্যক্তিত্ব। মা-বাবা ও দুই ভাই পরলোকগত। 

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি তিন ছেলে ও এক মেয়ের জনক। তাঁর স্ত্রী শিক্ষানুরাগী ও সমাজ সংস্কারক। সন্তানেরা সবাই বিবাহিত ও স্ব-স্ব ক্ষেত্রে লদ্ধপ্রতিষ্ঠ সম্মানিত ব্যক্তিত্ব।বর্ণাঢ্য শিক্ষাজীবন শেষে তিনি আইন পেশায় আত্মনিয়োগ করেন। শিক্ষাজীবনেই তিনি রাজনীতিতে নিজেকে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে ফেলেন। 

আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের ফলশ্রুতিতে তাঁকে কারাবরণ করতে হয়। জেলা ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বৃহত্তর ময়মনসিংহ ছাত্রলীগ নীতিনির্ধারক নেতা, গুরুদয়াল কলেজ ছাত্রসংসদ জিএস ও ভিপি, জেলা আইনজীবী সমিতি সভাপতি, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও নীতিনির্ধারক, এমএনএ, এমপি, বিরোধীদলীয় উপনেতা, ডেপুটি স্পিকার, স্পিকার, ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি হিসেবে সুনাম খ্যাতি ও যশস্বী হয়ে আজ তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী  বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি হিসেবে সামগ্রিক গ্রহণযোগ্যতায় দায়িত্বপালন করছেন।
 
বাংলাদেশে তিনি তৃণমূল রাজনীতির প্রধান পুরুধা মহান ব্যক্তিত্ব।কিশোরগঞ্জ জেলায় আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী মতাদর্শী বিভিন্ন সংগঠনের যে সকল নেতৃবৃন্দ সুনামের সাথে দায়িত্বপালন করছেন,সবাই তাঁর অনুসারী ও তিনি সকলের রাজনীতিক শিক্ষাগুরু।সবাইকেই তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর মহান আদর্শের দীক্ষা দিয়েছেন। গড়ে তুলেছেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সৈনিক হিসেবে।তিনি এমন রাজনীতিক, যাঁকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক জননেতা মরহুম সৈয়দ আশরাফুল ইসলামও 'আমার নেতা' সম্বোধন করতেন সগর্বে। এতটুকুন দ্বিধা করতেন না! সবার কাছেই তিনি আদর্শ ব্যক্তিত্ব।

ভাটিবাংলাকে তিনি সামগ্রিক সম্ভাবনায় শান্তি ও উন্নয়নের মানদণ্ডে ঈর্ষনীয় সফলতায় বিন্যস্ত করেছেন। আগামী দিনেও এর ধারাবাহিতা অক্ষুণ্ণ অটুট ও গতিশীল করতে তাঁর জ্যেষ্ঠ সন্তান জননেতা রেজওয়ান আহাম্মদ এমপি'কে তাঁর স্থলাভিষিক্ত করেছেন। তাঁর সুযোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে কিশোরগঞ্জের মানুষ তাঁর সন্তানকে অকাতরে আপন ক'রে নিয়েছে।বাবার যথার্থ উত্তরসূরি হিসেবে সবার কাছে তাঁর সন্তান নিজেকে একাত্ম ক'রে নিয়েছেন। জেলা আওয়ামী লীগের কাণ্ডারি হিসেবে সবাই আজ তাঁর জ্যেষ্ঠ সন্তানকে অলিখিতভাবে গ্রহণ ক'রে নিয়েছেন। সেই একই সুর একই স্বর, একই কণ্ঠ একই একাত্মতা গণমানুষের প্রতি! এ যেন এক অন্য হামিদ! 

কিশোরগঞ্জের কৃতিসন্তান বিদগ্ধ রাজনীতিক মরহুম রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান মৃত্যুবরণ করলে নতুন রাষ্ট্রপতি হিসেবে স্থলাভিষিক্ত হতে অনেকেই আগ্রহ প্রকাশ করলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা সামগ্রিক গ্রহণযোগ্যতা নীরিখে অ্যাভোকেট আবদুল হামিদকেই নির্বাচন করেন গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায়। তখন তিনি স্পিকার হিসেবে জাতীয় সংসদকে সকল সাংসদ ও দেশবাসীর কাছে প্রানবন্ত করে তুলেছেন এক ঈর্ষণীয় এক স্বতন্ত্র মাত্রায়।

শুধু আওয়ামী লীগই নয় সব রাজনীতি দলই দ্বীধাহীনতায় তাঁকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে গ্রহণ ক'রে। ভাটিবাংলার অভিভাবক থেকে তিনি আজ বাংলাদেশ অভিভাবক হিসেবে দেশ-আদর্শ মহান ব্যক্তিত্ব।মহিয়ান মহিরুহ!
 
‘মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। 'সতত সততা সাধনা নিষ্ঠা একাগ্রতার ভেতর দিয়ে সক্ষমতা অর্জন ক'রে একজন মানুষ অনায়াসেই সূর্যদীঘল দীগন্তে পৌঁছে যেতে পারে। বড় হতে পারে স্বপ্নের সমান। মহাকালের মহানায়কদের জীবনেতিহাস তা-ই প্রমাণ করে। আমাদের মহানায়ক কিংবদন্তী রাজনীতিক মুক্তিযুদ্ধের অগ্রনায়ক আধুনিক ভাটিবাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা বাংলাদেশ অভিভাবক ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো.আবদুল হামিদ তেমনি এক মহান প্রতীভূ। ঘুরে দাঁড়ানো এক অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ।

আমরা তাঁর আলোয় আলোকিত হতে বদ্ধপরিকর। আমাদের সহজাত আকুলতা যে, সময়ের এই সাহসী সন্তান তাঁর সুস্বাস্থ্য ও খ্যাতিদীর্ঘ মর্যাদাবান উন্নত উচ্চকিত সুফলা সফল জীবনের আজীবন ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখুন তিনি। মানুষের প্রার্থনার আলো নিয়ে তিনি বেঁচে থাকুন মহাকালের মহানায়ক হয়ে, ঐকান্তিক কামনা।

 

লেখক: জীবন তাপস তন্ময়

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

শিক্ষা উপমন্ত্রী দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে যা বললেন


নিউজ ডেস্ক:
বৃহস্পতিবার, ০৮ এপ্রিল, ২০২১, ০৬:৫৯
শিক্ষা উপমন্ত্রী দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে যা বললেন

শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল

একটি ফেসবুক পেজ থেকে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের বিরুদ্ধে দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে অপপ্রচার চালানো হয়। সেখানে দাবি করা হয়েছে তিনি বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের ‘দ্বৈত নাগরিক’।

পেজটিতে আরও বলা হয়েছে যে, শিক্ষা উপমন্ত্রী সংবিধান লঙ্ঘন করে বিবাহ সূত্রে যুক্তরাজ্যের নাগরিক হয়ে গেছেন। বিষয়টি নওফেলের দৃষ্টিগোচর হলে নিজের ব্যক্তিগত ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে বুধবার (৭ এপ্রিল) দিবাগত রাতে একটি স্ট্যাটাস দেন। তার স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো জনমনে বিভ্রান্ত দূর করার জন্যে: 

‘একটি ফেসবুক পেজে প্রচার করা হয়েছে বিবাহ সূত্রে আমার যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব হয়ে গিয়েছে এবং তা সংবিধান লঙ্ঘন! এইসব উদ্ভট প্রচারকদের কারণে কেউ যদি বিভ্রান্তও হয়, তাই সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে, বাংলাদেশ ব্যতীত কোনো দেশের নাগরিক আমি কখনও ছিলাম না এখনও নেই!’
 
‘যুক্তরাজ্যে পড়াশুনা করলেই বা ওই দেশের কারো সাথে বিবাহ হলেই সেখানের নাগরিক হওয়া যায় না। বৈবাহিক সূত্রে নাগরিক হতে হলেও একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী হতে হয় এবং সর্বশেষ যা আমি শুনেছি প্রায় ছয় বছর সেখানে বিবাহ পরবর্তী নিয়মিত থাকতে হয়। সুতরাং, আমার অজ্ঞাতসারেও, বিবাহ সূত্রে যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব পেয়ে যাওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নাই!’

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম
Share on Facebook