ঢাকা সোমবার, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ আগষ্ট, ২০২২
Mukto Sangbad Protidin

৩ নম্বর সতর্কসংকেত বহাল রয়েছে সমুদ্রবন্দরে


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক: বুধবার, ০৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ০৯:১৮
৩ নম্বর সতর্কসংকেত বহাল রয়েছে সমুদ্রবন্দরে
ফাইল ছবি

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসমূহে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কসংকেত দেওয়া হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সাবধানে উপকূলের কাছাকাছি চলাচল করতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে— উড়িষ্যা উপকূলের অদূরে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও এর কাছাকাছি পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি ঘনীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপ আকারে উপকূলীয় অন্ধপ্রদেশ ও এর কাছাকাছি উড়িষ্যা এলাকায় অবস্থান করছে।

এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও এর কাছাকাছি এলাকায় বায়ুচাপের তারতম্যের আধিক্য বিরাজ করছে। বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা, উত্তর বঙ্গোপসাগর এবং সমুদ্রবন্দরসমূহের ওপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। খবর বাসস

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে— রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম এবং সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে।

পরবর্তী দুদিনে আবহাওয়া পরিস্থিতি উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন ঘটার সম্ভাবনা নেই। পরের পাঁচ দিনে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়তে পারে।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

সাগরে লঘুচাপের কারণে বৃষ্টি আরও দু'দিন থাকতে পারে


মুক্তসংবাদ প্রতিদিন ডেস্ক:
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২১, ১১:৪১
সাগরে লঘুচাপের কারণে বৃষ্টি আরও দু'দিন থাকতে পারে

ফাইল ছবি

বঙ্গোপসাগরে আরেকটি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়েছে। সাগর উত্তাল থাকায় বহাল রাখা হয়েছে সতর্ক সংকেতও। ফলে বৃষ্টিপাত থাকতে পারে আরও দু’দিন।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় একটি লঘুচাপের সৃষ্টি হয়েছে। তেলেঙ্গানা ও তৎসংলগ্ন এলাকায় বিরাজমান লঘুচাপটি বর্তমানে মধ্যপ্রদেশ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। দক্ষিণ-পশ্চিম মৌসুমি বায়ু দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে বিদায় নিয়েছে। তবে দেশের অন্যত্র মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে তা মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক জানিয়েছেন মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা ১-২ ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পেতে পারে। ঢাকায় দক্ষিণ/দক্ষিণপূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় বাতাসের গতিবেগ থাকবে ১০-১৫ কি.মিটার, যা অস্থায়ীভাবে দমকা আকারে ঘণ্টায় ৪০-৫০ কি.মি. পর্যন্ত উঠে যেতে পারে।

বৃহস্পতিবার নাগাদ বৃষ্টি কমতে পারে। এ সময়ে দক্ষিণপশ্চিম মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের অবশিষ্টাংশ থেকে বিদায় নিতে পারে।

এদিকে বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য বিরাজ করছে। এর প্রভাবে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা, উত্তর বঙ্গোপসাগর এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

এই কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরগুলোকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

 

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

চট্টগ্রাম নগরীতে ক্ষমতার অপব্যবহার করলেন নৌবাহিনীর সদস্যরা!


মুক্তসংবাদ প্রতিদিন
বুধবার, ০৬ জানুয়ারী, ২০২১, ১২:৪৪
চট্টগ্রাম নগরীতে ক্ষমতার অপব্যবহার করলেন নৌবাহিনীর সদস্যরা!

ফাইল ফটো

বন্দরনগরী চট্টগ্রামের সবচেয়ে ব্যস্ততম সড়ক অবরোধ করে সামান্য ধুলাবালি থেকে রক্ষা পেতে পানি ছিটিয়েছে নৌ বাহিনীর সদস্যরা। তীব্র যানজটে আটকা পড়ে পথচারীরা কষ্ট পেলেও পানি ছিটানো শেষ না হওয়া পর্যন্ত একটি গাড়িও সামনের দিকে অগ্রসর হতে দেয়নি।

ফ্লাইওভার নির্মাণ সহ সড়ক মেরামতের কাজ চলার কারণে নগরীর ফ্রিপোর্ট থেকে শুরু করে বন্দরটিলা পর্যন্ত প্রতিদিন তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।
এরিমধ্যে সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙে পড়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। অতিরিক্ত যান চলাচলের কারণে তৈরি হয়েছে ধুলাবালি।সেই ধুলাবালিতে চলাচল করা পথচারীদের জন্য অনেক বেশি কষ্টকর হয়ে পড়েছে। অন্যদিকে সড়কের উভয় পাশের ব্যবসায়ীরাও পড়েছে চরম ভোগান্তিতে।তারমধ্যে তালতলা নেভিগেট এলাকায় নৌবাহিনী ঘাঁটির যে গেইটটা রয়েছে তার সামনে নৌ বাহিনীর সদস্যরা নিজেদেরকে ধুলাবালি থেকে রক্ষা করতে প্রতিদিন কিছুক্ষণ পরপর পানি ছিটিয়ে যাচ্ছে। সেই পানি ছিটাতে গিয়ে সকল পথচারী থেকে শুরু করে পরিবহন শ্রমিক ও যাত্রীদের প্রতি শুরু করেছে অমানবিক আচরণ।

নিজেদের ক্ষমতার অপব্যবহার করে তীব্র যানজটের সৃষ্টি করে পানি ছিটানোর নাম করে বন্ধ করে দিয়েছে বন্দরনগরী চট্টগ্রামের পতেঙ্গা ও এয়ারপোর্ট রোডের সেই ব্যস্ততম সড়কটি।

নৌবাহিনীর সদস্যরা সড়ক অবরোধ করে রাখার কারণে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের দায়িত্বরত সদস্যরাও কিছুই করতে পারছে না। জনদুর্ভোগের কথা ভেবে মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) বিকেল ৫ টার দিকে কয়েকজন যাত্রী যান চলাচল স্বাভাবিক করে দিতে অনুরোধ করতে গেলে নৌবাহিনীর সাধারণ কিছু সদস্য তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করার পাশাপাশি হুমকি দিয়েছে!

বিষয়টি নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত সকল পথচারী ও যাত্রীদের কে তীব্র ক্ষোভ এবং অসন্তোষ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / এম এ
Share on Facebook