ঢাকা রবিবার, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮, ০১ আগষ্ট, ২০২১
Mukto Sangbad Protidin

শুক্রবার সকাল থেকে বিচ্ছিন্ন হচ্ছে রাজধানী ঢাকা


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক: মঙ্গলবার, ২০ জুলাই, ২০২১, ০৫:২৯
শুক্রবার সকাল থেকে বিচ্ছিন্ন হচ্ছে রাজধানী ঢাকা
ফাইল ছবি

আগামী ২৩ জুলাই শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর লকডাউন চলবে। এ সময় গার্মেন্টসহ সব ধরনের শিল্পকারখানাসহ সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। 

জরুরি সেবা, গণমাধ্যম ও খাদ্য উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট পরিবহন ছাড়া সব ধরনের পরিবহন বন্ধ থাকবে। গণপরিবহন বিশেষ করে বাস, ট্রেন, লঞ্চ ও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট বন্ধ থাকবে। রাজধানী ঢাকা থাকবে বিচ্ছিন্ন। 

জিরো টলারেন্সে থাকবে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেছেন, ঈদের পর ১৪ দিন যে লকডাউন আসছে তা কঠোর থেকে কঠোরতর হবে।

এদিকে, ঈদের পর বিধি-নিষেধে অফিস বন্ধ থাকলেও সরকারি কর্মচারীদের নিজ নিজ কর্মস্থলে উপস্থিত থেকে মাঠপর্যায়ে অর্পিত দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এই নির্দেশনা দিয়ে সব সচিবকে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

নির্দেশনায় বলা হয়, কভিড-১৯ সংক্রমণ রোধে ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস বন্ধ ঘোষণাসহ বিভিন্ন বিধি-নিষেধ আরোপ করা করেছে। চিঠিতে বিধি-নিষেধ আরোপকালীন সচিবদের অধীনস্থ বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সব দপ্তরের সরকারি কর্মচারীকে কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে এবং তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, দেশের অর্থনীতির কথা চিন্তা করে লকডাউন শিথিল করা হয়েছে। ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে আবারও কঠোর লকডাউন শুরু হবে। কয়েক দিন আগে লকডাউনসংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, কোরবানি ঘিরে আমাদের বিশাল অর্থনীতি রয়েছে। সব কিছু বিবেচনা করে চলাফেরার ওপর বিধি-নিষেধ শিথিল করতে হয়েছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। যত দিন ভ্যাকসিন দেওয়া না হয় তত দিন মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।

২৩ দফা নির্দেশনা দিয়ে ঈদের তৃতীয় দিন- অর্থাৎ ২৩ জুলাই ভোর ৬টা থেকে ৫ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত বিধি-নিষেধ আরোপ করা হবে বলে প্রজ্ঞাপনে বলা হয়। ২৩ দফা নির্দেশনা : ১. ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি সব অফিস বন্ধ থাকবে। ২. সড়ক, রেল ও নৌপথে গণপরিবহন (অভ্যন্তরীণ বিমানসহ) ও সব যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। ৩. শপিংমল/মার্কেটসহ সব দোকানপাট বন্ধ থাকবে। ৪. সব পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদনকেন্দ্র বন্ধ থাকবে। ৫. সব শিল্প-কলকারখানা বন্ধ থাকবে। ৬. জনসমাবেশ হয় এ ধরনের সামাজিক অনুষ্ঠান (বিবাহোত্তর অনুষ্ঠান, ওয়ালিমা), জন্মদিন, পিকনিক, পার্টি ইত্যাদি বন্ধ থাকবে। ৭. বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট আদালতসমূহের বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে। ৮ ব্যাংকিং/বীমা/আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক/আর্থিকপ্রতিষ্ঠান বিভাগ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে। ৯. সরকারি কর্মচারীরা নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন এবং দাপ্তরিক সব কাজ ভার্চুয়ালি (ই-নথি, ই-টেন্ডারিং, ই-মেইল, এসএমএস, হোয়াটসঅ্যাপসহ অন্যান্য মাধ্যম) সম্পন্ন করবেন। ১০. আইন-শৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন- কৃষিপণ্য ও উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন/বিক্রয়, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কডিড-১৯ টিকা প্রদান, জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) প্রদান কার্যক্রম, রাজস্ব আদায় সম্পর্কিত কার্যাবলি, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তাব্যবস্থা, ডাক সেবা, ব্যাংক, ভিসাসংক্রান্ত কার্যক্রম, সিটি করপোরেশন/পৌরসভা (পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, সড়কের বাতি ব্যবস্থাপনা ইত্যাদি কার্যক্রম), সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, ফার্মেসি ও ফার্মাসিউটিক্যালসসহ অন্যান্য জরুরি/অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহের কর্মচারী ও যানবাহন প্রাতিষ্ঠানিক পরিচয়পত্র প্রদর্শন সাপেক্ষে যাতায়াত করতে পারবে।

১১. বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয় খোলা রাখার বিষয়ে অর্থ বিভাগ প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করবে। ১২. জরুরি পণ্য পরিবহনে নিয়োজিত ট্রাক/লরি/কাভার্ডভ্যান/নৌযান/পণ্যবাহী রেল/ফেরি এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে। ১৩. বন্দরসমূহ (বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল) এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ এ নিষেধাজ্ঞার আওতাবহির্ভূত থাকবে। ১৪. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে। সংশ্লিষ্ট বাণিজ্য সংগঠন/বাজার কর্তৃপক্ষ স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করবে। ১৫. অতি জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত (ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। নির্দেশনা অমান্যকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ১৬. টিকা কার্ড প্রদর্শন সাপেক্ষে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে। ১৭. খাবারের দোকান, হোটেল- রেস্তোরাঁ সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খাবার বিক্রয় (অনলাইন টেকঅ্যাওয়ে) করতে পারবে। ১৮. আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু থাকবে এবং বিদেশগামী যাত্রীরা তাদের আন্তর্জাতিক ভ্রমণের টিকিট/প্রমাণ প্রদর্শন করে গাড়ি ব্যবহার করে যাতায়াত করতে পারবেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে নামাজের বিষয়ে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় নির্দেশনা দেবে। ২০ ‘আর্মি ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার’ বিধানের আওতায় মাঠ পর্যায়ে কার্যকর টহল নিশ্চিত করার জন্য সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ প্রয়োজনীয় সংখ্যক সেনা মোতায়েন করবে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট স্থানীয় সেনা কমান্ডারের সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি নিশ্চিত করবেন। ২১. জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জেলা পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে সমন্বয়সভা করে সেনাবাহিনী, বিজিবি/কোস্ট গার্ড, পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার নিয়োগ ও টহলের অধিক্ষেত্র, পদ্ধতি ও সময় নির্ধারণ করবেন। সেই সঙ্গে স্থানীয়ভাবে বিশেষ কোনো কার্যক্রমের প্রয়োজন হলে সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেবেন। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগসমূহ এ বিষয়ে মাঠপর্যায়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করবে। ২২. জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় মাঠপর্যায়ে প্রয়োজনীয়সংখ্যক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের বিষয়টি নিশ্চিত করবে। ২৩. সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮-এর আওতায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ বাহিনীকে আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণের প্রয়োজনীয় ক্ষমতা প্রদান করবেন। লকডাউনে খোলা থাকবে ৩ খাত : ঈদের পর ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত কঠোর লকডাউনে খোলা থাকবে শুধু তিনটি খাত। খাতগুলো হলো- খাদ্য ও খাদ্যদ্রব্য উৎপাদন এবং প্রক্রিয়াজাতকরণ মিলকারখানা, কোরবানির পশুর চামড়া পরিবহন, সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং ওষুধ, অক্সিজেন ও কভিড-১৯ প্রতিরোধে ব্যবহারের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য উৎপাদনকারী শিল্প। প্রসঙ্গত, ঈদ উপলক্ষে বর্তমানে লকডাউন শিথিল করা হয়েছে। ঈদের পর ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত কঠোর লকডাউন দিয়েছে সরকার। সূত্র: বিডি প্রতিদিন

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

হোটেল-রেস্তোরাঁ ১৩ ঘণ্টা, নিত্যপণ্যের দোকান ৬ ঘণ্টা খোলা



সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১, ০২:৫৬
হোটেল-রেস্তোরাঁ ১৩ ঘণ্টা, নিত্যপণ্যের দোকান ৬ ঘণ্টা খোলা

ঘোষিত লকডাউনে আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে শপিংমল ও দোকানপাট বন্ধ রাখা হলেও ইফতারির সময় ঘিরে খাবারের দোকান এবং হোটেল-রেস্তোরাঁ ১৩ ঘণ্টা খোলা রাখা যাবে।

‘করোনা ভাইরাসজনিত রোগ (কোভিড-১৯) এর বিস্তার রোধকল্পে সার্বিক কার্যাবলি/চলাচলে বিধি-নিষেধ আরোপ’ সংক্রান্ত সোমবার (১২ এপ্রিল) প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রজ্ঞাপনে বলা হয় যে, খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে।

আর কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে। বাজার কর্তৃপক্ষ স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করবে বলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়।

করোনা পরিস্থিতির খারাপ হওয়ার কারণে আগামী ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধি-নিষেধ আরোপ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদঃ সংগ্রাম, সাফল্য ও গৌরবের মহানায়ক


ফেসবুক ডেস্ক:
রবিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২১, ০৭:৫০
মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদঃ সংগ্রাম, সাফল্য ও গৌরবের মহানায়ক

দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে তৃতীয়-বর্ষ পূর্ণ হ’ল! তিন বছর আগে দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ পাঠ করেন মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। মাননীয় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী তাঁকে ২০১৮সালের ২৪ এপ্রিল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবন দরবার হলে এ শপথ পাঠ করান। রাষ্ট্রপতি হিসেবে সাফল্য ও সম্মানের তিন বছর।তবে প্রথম মেয়াদ সহ আট বছর হ’ল। এদেশে রাষ্ট্রপতি হিসেবে আর কেউ এই হিরন্ময় গৌরব অর্জন করতে পারেননি। বিশ্বেও এমন সৌভাগ্যসুন্দর রাষ্ট্রপতি বিরল। এ আমাদের গর্বিত অহংকার।

মো.আবদুল হামিদ। কিংবদন্তীতুল্য রাজনীতিক। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ-সন্তান।গণমানুষের অকৃত্রিম বন্ধু। সতত সংগ্রাম ও সাধনায় অর্জন করেছেন বর্ণাঢ্য খ্যাতিদীর্ঘ জীবন। জন্মেছেন কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামইন উপজেলায় কামালপুর গ্রামের সম্ভ্রান্ত এক মুসলিম পরিবারে। তাঁর পিতার নাম হাজী তায়েব উদ্দিন আর মায়ের নাম তমিজা খাতুন। তাঁরা পাঁচ ভাই ও এক বোন।বোন ও ভাইয়েরা সবাই সমাজ-সম্মানিত ব্যক্তিত্ব। মা-বাবা ও দুই ভাই পরলোকগত। 

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি তিন ছেলে ও এক মেয়ের জনক। তাঁর স্ত্রী শিক্ষানুরাগী ও সমাজ সংস্কারক। সন্তানেরা সবাই বিবাহিত ও স্ব-স্ব ক্ষেত্রে লদ্ধপ্রতিষ্ঠ সম্মানিত ব্যক্তিত্ব।বর্ণাঢ্য শিক্ষাজীবন শেষে তিনি আইন পেশায় আত্মনিয়োগ করেন। শিক্ষাজীবনেই তিনি রাজনীতিতে নিজেকে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে ফেলেন। 

আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনের ফলশ্রুতিতে তাঁকে কারাবরণ করতে হয়। জেলা ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বৃহত্তর ময়মনসিংহ ছাত্রলীগ নীতিনির্ধারক নেতা, গুরুদয়াল কলেজ ছাত্রসংসদ জিএস ও ভিপি, জেলা আইনজীবী সমিতি সভাপতি, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও নীতিনির্ধারক, এমএনএ, এমপি, বিরোধীদলীয় উপনেতা, ডেপুটি স্পিকার, স্পিকার, ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি হিসেবে সুনাম খ্যাতি ও যশস্বী হয়ে আজ তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী  বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি হিসেবে সামগ্রিক গ্রহণযোগ্যতায় দায়িত্বপালন করছেন।
 
বাংলাদেশে তিনি তৃণমূল রাজনীতির প্রধান পুরুধা মহান ব্যক্তিত্ব।কিশোরগঞ্জ জেলায় আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী মতাদর্শী বিভিন্ন সংগঠনের যে সকল নেতৃবৃন্দ সুনামের সাথে দায়িত্বপালন করছেন,সবাই তাঁর অনুসারী ও তিনি সকলের রাজনীতিক শিক্ষাগুরু।সবাইকেই তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর মহান আদর্শের দীক্ষা দিয়েছেন। গড়ে তুলেছেন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ সৈনিক হিসেবে।তিনি এমন রাজনীতিক, যাঁকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক জননেতা মরহুম সৈয়দ আশরাফুল ইসলামও 'আমার নেতা' সম্বোধন করতেন সগর্বে। এতটুকুন দ্বিধা করতেন না! সবার কাছেই তিনি আদর্শ ব্যক্তিত্ব।

ভাটিবাংলাকে তিনি সামগ্রিক সম্ভাবনায় শান্তি ও উন্নয়নের মানদণ্ডে ঈর্ষনীয় সফলতায় বিন্যস্ত করেছেন। আগামী দিনেও এর ধারাবাহিতা অক্ষুণ্ণ অটুট ও গতিশীল করতে তাঁর জ্যেষ্ঠ সন্তান জননেতা রেজওয়ান আহাম্মদ এমপি'কে তাঁর স্থলাভিষিক্ত করেছেন। তাঁর সুযোগ্য উত্তরসূরি হিসেবে কিশোরগঞ্জের মানুষ তাঁর সন্তানকে অকাতরে আপন ক'রে নিয়েছে।বাবার যথার্থ উত্তরসূরি হিসেবে সবার কাছে তাঁর সন্তান নিজেকে একাত্ম ক'রে নিয়েছেন। জেলা আওয়ামী লীগের কাণ্ডারি হিসেবে সবাই আজ তাঁর জ্যেষ্ঠ সন্তানকে অলিখিতভাবে গ্রহণ ক'রে নিয়েছেন। সেই একই সুর একই স্বর, একই কণ্ঠ একই একাত্মতা গণমানুষের প্রতি! এ যেন এক অন্য হামিদ! 

কিশোরগঞ্জের কৃতিসন্তান বিদগ্ধ রাজনীতিক মরহুম রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান মৃত্যুবরণ করলে নতুন রাষ্ট্রপতি হিসেবে স্থলাভিষিক্ত হতে অনেকেই আগ্রহ প্রকাশ করলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা সামগ্রিক গ্রহণযোগ্যতা নীরিখে অ্যাভোকেট আবদুল হামিদকেই নির্বাচন করেন গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায়। তখন তিনি স্পিকার হিসেবে জাতীয় সংসদকে সকল সাংসদ ও দেশবাসীর কাছে প্রানবন্ত করে তুলেছেন এক ঈর্ষণীয় এক স্বতন্ত্র মাত্রায়।

শুধু আওয়ামী লীগই নয় সব রাজনীতি দলই দ্বীধাহীনতায় তাঁকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে গ্রহণ ক'রে। ভাটিবাংলার অভিভাবক থেকে তিনি আজ বাংলাদেশ অভিভাবক হিসেবে দেশ-আদর্শ মহান ব্যক্তিত্ব।মহিয়ান মহিরুহ!
 
‘মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়। 'সতত সততা সাধনা নিষ্ঠা একাগ্রতার ভেতর দিয়ে সক্ষমতা অর্জন ক'রে একজন মানুষ অনায়াসেই সূর্যদীঘল দীগন্তে পৌঁছে যেতে পারে। বড় হতে পারে স্বপ্নের সমান। মহাকালের মহানায়কদের জীবনেতিহাস তা-ই প্রমাণ করে। আমাদের মহানায়ক কিংবদন্তী রাজনীতিক মুক্তিযুদ্ধের অগ্রনায়ক আধুনিক ভাটিবাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা বাংলাদেশ অভিভাবক ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো.আবদুল হামিদ তেমনি এক মহান প্রতীভূ। ঘুরে দাঁড়ানো এক অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ।

আমরা তাঁর আলোয় আলোকিত হতে বদ্ধপরিকর। আমাদের সহজাত আকুলতা যে, সময়ের এই সাহসী সন্তান তাঁর সুস্বাস্থ্য ও খ্যাতিদীর্ঘ মর্যাদাবান উন্নত উচ্চকিত সুফলা সফল জীবনের আজীবন ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখুন তিনি। মানুষের প্রার্থনার আলো নিয়ে তিনি বেঁচে থাকুন মহাকালের মহানায়ক হয়ে, ঐকান্তিক কামনা।

 

লেখক: জীবন তাপস তন্ময়

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম
Share on Facebook