ঢাকা শনিবার, ১০ আশ্বিন ১৪২৮, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
Mukto Sangbad Protidin

করোনায় অনন্তযাত্রায় পাড়ি জমালেন ইন্দ্রমোহন রাজবংশী- মেসবা খান


নিউজ ডেস্ক: বৃহস্পতিবার, ০৮ এপ্রিল, ২০২১, ১০:১৩
করোনায় অনন্তযাত্রায় পাড়ি জমালেন ইন্দ্রমোহন রাজবংশী- মেসবা খান
সঙ্গীতশিল্পী ইন্দ্রমোহন রাজবংশী

করোনার নির্মম ছোবলে অনন্তযাত্রায় পাড়ি জমালেন একুশে পদকপ্রাপ্ত সঙ্গীতশিল্পী ইন্দ্রমোহন রাজবংশী। বুধবার ৭ এপ্রিল সকাল প্রায় ১০টার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। 

ইন্দ্রমোহন রাজবংশীর জন্ম রাজধানী ঢাকা শহরে। তার পরিবারের পাঁচ পুরুষ সঙ্গীতের সঙ্গে জড়িত। সঙ্গীত কলেজে লোকসঙ্গীত বিভাগের প্রধান হিসেবে তিনি দীর্ঘদিন কাজ করেছেন। 
তিনি ছিলেন বাংলাদেশ লোকসংস্কৃতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা। ১৯৫৭ সালে ছোটদের আসরে গান করতে শুরু করেন তিনি।

১৯৬৭ সালে 'চেনা অচেনা' চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে প্লেব্যাক শিল্পী হিসেবে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে তার। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন বন্ধে নাম-পরিচয় গোপন করে পাকিস্তানিদের দোভাষী হিসেবে কাজ করেছেন কিছুদিন।পরবর্তীতে সেখান থেকে চলে এসে মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রেরণা দিতে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে কণ্ঠযোদ্ধা হিসেবে অংশগ্রহণ করেন রাজবংশী।

ভাওয়াইয়া, ভাটিয়ালী, জারি, সারি, মুর্শিদি ইত্যাদি গানের পাশাপাশি রবীন্দ্রসঙ্গীতশিল্পী হিসেবেও প্রতিষ্ঠিত তিনি। দেশের সঙ্গীতাঙ্গণে অসামান্য অবদানের জন্য ২০১৮ সালে সঙ্গীত বিভাগে একুশে পদক লাভ করেন খ্যাতিমান এই সঙ্গীতশিল্পী। 

চলচ্চিত্র, বেতার ও টেলিভিশনে অনেক গান গেয়েছেন তিনি। গান গাওয়ার পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লোকগান সংগ্রহ করতেন ইন্দ্রমোহন রাজবংশী। দেশের সহস্রাধিক কবির লেখা কয়েক লাখ গান সংগ্রহ করেছেন তিনি। তার স্ত্রীর নাম দীপ্তি রাজবংশী, পুত্র রবীন রাজবংশীও লোকগানের সঙ্গে জড়িত। দেশবরেণ্য এই কণ্ঠযোদ্ধার প্রতি রইল অন্তিম শ্রদ্ধা। 

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হচ্ছে বশেমুরবিপ্রবি'র লোকপ্রশাসন বিভাগের সভা পতিকে সভা পতিকে পতিকে সভা পতিকে


মুক্তসংবাদ প্রতিদিন
সোমবার, ০৪ জানুয়ারী, ২০২১, ১২:৪৮
ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হচ্ছে বশেমুরবিপ্রবি'র লোকপ্রশাসন বিভাগের সভাপতিকে

ফাইল ফটো

গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের সভাপতি বিতান খানমকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই বিভাগের প্রভাষক টি.এন. সোনিয়া আজাদ এডিট করা এক অডিও দিয়ে এই ষড়যন্ত্র করছেন বলে জানা গেছে।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, গত ০৩ জানুয়ারি বিভাগের প্লানিং কমিটির মিটিংয়ের একটি গোপন রেকর্ডিং বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়া হয়। যেখানে বলা হয় বিভাগীয় সভাপতি তারই সহকর্মী টি.এন. সোনিয়া আজাদকে শারীরিক নিগ্রহ এবং হুমকি প্রদান করেছেন। কিন্তু বিভাগীয় প্লানিং কমিটির মিটিংয়ের মত একটি গোপনীয় বিষয়ের কথপোকথন পরিকল্পিতভাবে রেকর্ডিং করে এবং তা পরবর্তীতে এডিট করে প্রকাশ করা হয়েছে বলে অভিযোগ বিভাগীয় সভাপতি। যার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন প্লানিং কমিটির ঐ সভায় উপস্থিত অন্য তিন সদস্য।

বিভাগীয় সভাপতি বিতান খানম বলেন, মিটিংয়ে সকল সদস্যকে আপগ্রেডেশনের সকল তথ্য উপাত্ত পর্যাবেক্ষণ করে স্বাক্ষর করতে বলা হয়। আমাদের সাথে জনাব টি.এন সোনিয়া আজাদও সহমত পোষণ করেন। জনাব ইমা সুলতানা চারুর অভিজ্ঞতা ও যোগ্যতা গণনা ঠিক আছে এই মর্মে স্বাক্ষর করবেন বলে মত পোষণ করেন। কিন্তু তিনি স্বাক্ষর এর সময় নোট অব ডিসেন্ট সহ স্বাক্ষর করেন।

বিতান খানম বলেন, আমি ও জনাব মোঃ নাসির উদ্দিন জনাব টি.এন, সোনিয়া আজাদের কাছে জানতে চাই কেন সহমত পোষণ করার পর নোট অব ডিসেন্ট সহ স্বাক্ষর করলেন। আপনার যদি আপত্তি থাকত তবে তা মিটিং এ উপস্থাপন করলে আলোচনা সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া যেত। এর জবাব না দিয়ে তিনি মিটিং ছেড়ে চলে যেতে চাইলে আমি তাকে মিটিং শেষ করে যেতে বলি।

বিতান খানম বলেন, মিটিং শেষ করে যেতে বল্লে উত্তরে তিনি সবাইকে অবাক করে বলেন, যদি মিটিং শেষ করে না যাই তো আপনি আমাকে মারবেন নাকি? এবং এই কথোপকথন তিনি পূর্ব থেকেই রেকর্ড করছিলেন।

এখানে শারিরিক ভাবে নির্যাতনের কোনো অবস্থা সৃষ্টি হয়নি। তবুও তিনি আমাকে জিজ্ঞেসা করলেন মারার কথা। তারপর আমি আমার প্রজেক্টের রিপোর্ট পিন-আপ করার জন্য ইস্টাপিলার হাতে নেই কিন্তু সে তখন বলে ইস্টাপিলার হাতে নিয়েছেন কি আমাকে মারার জন্য তখন আমি বলি আমি যাই হাতে নিই তাতে-ই আপনার কেন মনে হচ্ছে আমি আপনাকে মারবো? আমি এটা টেবিল ও রাখতে পারি, এটা দিয়ে পিনাপও করতে পারি বা এটা ফেলে দিতেও পারি, এই বলে আমি পাশে ফেলে দেই। তখন সোনিয়া ম্যাডাম চিৎকার করে বলে "বিতান ম্যাডাম আমাকে মারছেন”। এ কথা বলার কারণ সে ঐ সময় উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে রেকর্ড করছিলেন। কিন্তু এ ধরনের কোনো ঘটনার অস্তিত্ব নেই। যা বিভাগের উপস্থিত অন্য সহকর্মীবৃন্দ উপস্থিত থেকে দেখেছেন।

এদিকে ঘটনার বিচার চেয়ে বিভাগীয় সভাপতি বিতান খানম বিশ্ববিদ্যালয় রেজিষ্ট্রার বরাবর একটি আবেদন দিয়েছেন বলে জানা গেছে। তবে সেই আবেদনের বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা না নিলেও বিতান খানমকে প্রশাসন থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

বিতান খানম বলেন, সোনিয়া ম্যাডাম আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করার পর আমি তাকে জিজ্ঞেসা করি কেন মিথ্যা অভিযোগ করেছে। সেটা জানতে চাইলে তখন তিনি বলেন “আমি মিথ্যা অভিযোগ করছি তো আপনি আমার কি করবেন? এখন প্রশাসন আমার সাথে আমি চাইলেই অনেক কিছু করতে পারি।“ তখন আমি বলি “আমি আপনার কিছুই করতে পারবোনা আর পারলে তো এতো দিনে করতাম-ই কিন্তু আমি যদি এই পজিশনে না থাকতাম আর আপনি যদি আমার সহকর্মী না হতেন আর কাওকে এতো উপকার করার পর যদি সে আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করতো তাহলে আমি হয়তো তার কল্লাই কাটতাম।“

প্রসঙ্গত, টি. এন. সোনিয়া আজাদ বর্তমান প্রশাসনের একজন প্রভাবশালী শিক্ষকের ঘনিষ্ঠজন হিসাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিচিত।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / এম এ

বশেফমুবিপ্রবিতে সচিবকে কোষাধ্যক্ষ পদে নিয়োগ: জবি শিক্ষক সমিতির নিন্দা


অমৃত রায়, মুক্তসংবাদ প্রতিদিন:
শুক্রবার, ০৭ মে, ২০২১, ০৪:২৭
বশেফমুবিপ্রবিতে সচিবকে কোষাধ্যক্ষ পদে নিয়োগ: জবি শিক্ষক সমিতির নিন্দা

সংগৃহীত ছবি

 

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেফমুবিপ্রবি) কোষাধ্যক্ষ পদে অবসরপ্রাপ্ত (পি আর এল) একজন অতিরিক্ত সচিবকে নিয়োগ দেওয়ায় এর নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। শুক্রবার (৭মে) শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে এ নিন্দা জানানো হয়।

প্রতিবাদ লিপিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয় জ্ঞান বিতরণ ও জ্ঞান সৃষ্টির স্থান। একজন কোষাধ্যক্ষ ভাইস চ্যান্সেলরের সাথে সমন্বয়পূর্বক বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থসংশ্লিষ্ট বিষয়সহ জ্ঞান বিতরণ ও জ্ঞান সৃষ্টির নানাবিধ কর্মকান্ডে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক উন্নয়নে ভূমিকা পালন করেন। কাজেই একজন প্রথিতযশা শিক্ষাবিদই এই পদের যোগ্য। এই পদে একজন সরকারি কর্মকর্তার নিয়োগদান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপর আমলাতন্ত্রের নগ্ন হস্তক্ষেপ।

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ পদে মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলরের অনুমোদনক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (পিআরএল ভোগরত) মোহাম্মদ আবদুল মান্নানকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একজন কর্মকর্তা হিসেবে তাঁর চাকুরীজীবন শেষ করেছেন। এই নিয়োগাদেশ শিক্ষকসমাজে ক্ষোভের সঞ্চার করেছে যা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক পরিবেশকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে।

এর পরিপ্রেক্ষিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। এছাড়াও এ প্রতিবাদলিপির মাধ্যমে অবিলম্বে এই নিয়োগাদেশ প্রত্যাহার করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবি জানায় শিক্ষক সমিতি।

উল্লেখ্য, গত ৫মে রাষ্ট্রপতি ও চ্যান্সেলরের অনুমোদনক্রমে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আইন ২০১৭ এর ১৩ (১) ধারা অনুযায়ী জনাব মোহাম্মদ আবদুল মান্নানকে (অতিরিক্ত সচিব, পি আর এল ভোগরত) বিশ্ববিদ্যালয়টির কোষাধ্যক্ষ পদে নিয়োগ করা হয়।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম
Share on Facebook