ঢাকা সোমবার, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৬ মে, ২০২২
Mukto Sangbad Protidin

আজ মেজর সিনহা হত্যা মামলার রায়


মুক্তসংবাদ প্রতিদিন ডেস্ক সোমবার, ৩১ জানুয়ারী, ২০২২, ১১:৩৯
আজ মেজর সিনহা হত্যা মামলার রায়
ফাইল ছবি

সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলার রায় আজ প্রদান করা হবে। কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইলের আদালতে এ রায় ঘোষণার তারিখ নির্ধারন করা হয়েছে।

দেড় বছর ধরে চলা এ মামলায় দীর্ঘ শুনানি, সাক্ষ্যগ্রহণ, জেরা ও আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক শেষে গত ১২ জানুয়ারি রায়ের তারিখ নির্ধারণ করে আদালত।

উল্লেখ্য,  ২০২০ সালের ৩১ জুলাই রাতে রিসোর্টে ফেরার পথে টেকনাফ মেরিনড্রাইভ সড়কে শামলাপুর এপিবিএন পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সিনহা। ঘটনাটি সারা দেশে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে।

হত্যাকান্ডের পাঁচ দিন পর ৫ আগস্ট সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস বাদী হয়ে কক্সবাজার জ্যৈষ্ঠ বিচারিক হাকিম তামান্না ফারাহর আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন। আসামি করা হয় টেকনাফ থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলী, উপপরিদর্শক নন্দদুলাল রক্ষিতসহ পুলিশের ৯ সদস্যকে। আদালত মামলাটির তদন্তভার দেয় কক্সবাজারের র‌্যাব-১৫ কে। এ ছাড়াও পুলিশের করা তিনটি মামলার তদন্তের দায়িত্ব পায় র‌্যাব-১৫।

৬ আগস্ট ওসি প্রদীপ, পরিদর্শক লিয়াকতসহ মামলার আসামি সাত পুলিশ সদস্য আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে তদন্তে নেমে হত্যার ঘটনায় স্থানীয় তিন বাসিন্দা, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) তিন সদস্য ও ওসি প্রদীপের দেহরক্ষীসহ আরও মোট সাতজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এরপর ২০২০ সালের ২৪ জুন মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি কনস্টেবল সাগর দেব আদালতে আত্মসমর্পণের মাধ্যমে আলোচিত এই মামলার ১৫ আসামির সবাই আইনের আওতায় আসেন।

১৫ আসামির মধ্যে টেকনাফ থানার বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, বরখাস্ত কনস্টেবল রুবেল শর্মা ও সাগর দেব ছাড়া বাকি ১২ আসামি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

এ মামলায় চার মাসের বেশি সময় তদন্ত শেষে ২০২০ সালের ১৩ ডিসেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম। ১৫ জনকে আসামি করে দায়ের করা অভিযোগপত্রে সিনহা হত্যাকান্ডকে একটি ‘পরিকল্পিত ঘটনা’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জেলা জজ আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম জানিয়েছেন, আদালতের কাছে প্রসিকিউশন মেজর (অব.) সিনহাকে সুপরিকল্পিত হত্যা করার ঘটনাটি প্রমাণ করতে পেরেছে। আদালত এই মামলায় আসামি প্রদীপ, লিয়াকতসহ সব আসামির সর্বোচ্চ শাস্তির রায় ঘোষণা করবেন বলে আশা প্রসিকিউশনের।

বাদী পক্ষের আইনজীবী মো. জাহাঙ্গীর জানিয়েছেন, এই মামলার সাক্ষীদের সাক্ষ্য, এভিডেন্স ও তথ্য প্রমাণে প্রসিকিউশন প্রমাণ করতে পেরেছে, আসামিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মেজর (অব.) সিনহাকে হত্যা করেছে। তাই আশা করি আদালত আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেবে।

এই মামলায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপের পক্ষে আদালতে আইনি লড়াইয়ে সার্বক্ষণিক উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত। তিনি আদালতে শুনানিতে অংশ নিয়ে বলতে চেয়েছেন, সিনহা হত্যাকান্ডে ওসি প্রদীপ জড়িত ছিলেন না। মামলার এভিডেন্স অনুযায়ী ওসি প্রদীপ ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করেন। অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত এই মামলায় ওসি প্রদীপকে খালাস প্রদানের দাবি করেন। সূত্র: বিডি প্রতিদিন

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

কারণ দেখাতে না পারায় পুলিশ কর্মকর্তার মোটরসাইকেলও জব্দ!


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক:
রবিবার, ০৪ জুলাই, ২০২১, ০৭:৪৩
কারণ দেখাতে না পারায় পুলিশ কর্মকর্তার মোটরসাইকেলও জব্দ!

ফাইল ছবি

পুলিশি চেকপোস্টে রক্ষা পায়নি এএসআইয়ের মোটরসাইকেল। যৌক্তিক কারণ ছাড়া বের হওয়া ও হেলমেটসহ মোটরসাইকেলের কাগজপত্র দেখাতে না পারায় তার বিরুদ্ধে মামলা ও মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়েছে। 

কঠোর লকডাউনের চতুর্থ দিন রোববার বেলা ১১টার দিকে নগরীর আমতলার মোড়ে চলমান চেকপোস্টে পুলিশ পরিচয় দিয়েও এক ব্যক্তি রক্ষা পাননি। পরে তার মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়।

জানা গেছে, বেলা ১১টার দিকে নগরীর আমতলার মোড়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনারের (ট্রাফিক) উপস্থিতিতে নিয়মিত চেকপোস্টে জিজ্ঞাসাবাদ কার্যক্রম চলছিল। এ সময় একটি মোটরসাইকেলে হেলমেটবিহীন দুই ব্যক্তি সেখানে হাজির হন। চেকপোস্টে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা লকডাউনের মধ্যে তাদের ঘর থেকে বাইরে বের হওয়ার কারণ জানতে চান। পুলিশসহ দুজন ব্যক্তি যৌক্তিক কোনো কারণ দেখাতে পারেনি। 

এ সময় মোটরসাইকেল আরোহীর একজন নিজেকে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার সদস্য দাবি করেন এবং নিজের নাম কামরুজ্জামান, পদবি এএসআই বলে জানান। তবে ওই সময়ে তার ডিউটি ছিল না এবং পরিচয়পত্র দেখাতে পারেননি। এমনকি তার গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চাইলে তাও দেখাতে পারেননি। তাই তার মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

শরিয়তপুরের বিল্লাল হত্যা মামলার দুই আসামি গ্রেফতার


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক:
শুক্রবার, ২১ মে, ২০২১, ১১:২২
শরিয়তপুরের বিল্লাল হত্যা মামলার দুই আসামি গ্রেফতার

ফাইল ছবি

 

গত সোমবার ১৭ মে রাত সাড়ে ১০ টায় ঢাকাগামী এক মোটরসাইকেল আরোহীকে দাউদকান্দি টোলপ্লাজায় ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়। নিহতের বাড়ি শরিয়তপুর জেলার সখিপুর থানার বালা কান্দি গ্রামে। 

দাউদকান্দি গোমতী টোলপ্লাজায় ছিনতাইকারীরা পথরোধ করে দাঁড়িয়ে মটর সাইকেল নিয়ে যেতে চাইলে বাধা দেয় বিল্লাল (২৫)। তখন ছিনতাকারী দলের সদস্যরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে বিল্লালকে আঘাত করলে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে সে। এরপর ভয়ে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা। পরে ভুক্তভোগী বিল্লালকে (২৫) স্থানীয় হাসপাতালে নেয়া হলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকা মৃত ঘোষণা করেন।

উক্ত ঘটনায় ১৮ মে মঙ্গলবার পুলিশ নিজে বাদী হয়ে দাউদকান্দি মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

কোন ধরনের চিহ্ন না থাকা এই মামলাটি বেশ জটিল ছিল, তারপরেও অল্প সময়ের মধ্যেই দুই আসামীকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন দাউদকান্দি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নজরুল ইসলাম ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। 

গ্রেফতারকৃত ছিনতাইচক্রের দুই সদস্য হলেন উপজেলার সবজিকান্দি গ্রামের আব্দুল ওয়াদুদ মিয়ার ছেলে মো. মনির হোসেন, একই উপজেলার দোনারচর গ্রামের মাইজউদ্দিনের ছেলে আলাউদ্দিন।

দাউদকান্দি মডেল থানার অফিসার-ইনচার্জ মো.নজরুল ইসলাম গনমাধ্যমকে জানান," বিল্লাল হোসেন খুনের অন্যতম আসামী মনির হোসেন ও আলাউদ্দিনকে আমরা গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি। আসামি মনির হোসেন আদালতে ১৬৪ ধারায় হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। আসামি মনিরকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। জবানবন্দিতে আরও জড়িত থাকার নাম পেয়েছি। বাকী আসামীদেরকেও গ্রেফতার প্রক্রিয়া চলমান আছে।

তিনি আরও জানান, আসামী মনিরের বিরুদ্ধে এর আগে ৩ টি মামলা এবং আসামি আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে ডাকাতি, অস্ত্র, দ্রুত বিচার ও মাদকের ১২ টি মামলা বিচারাধীন আছে।"

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম
Share on Facebook