ঢাকা মঙ্গলবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ২৯ নভেম্বর, ২০২২
Mukto Sangbad Protidin

গাজী মাজহারুল আনোয়ার আর নেই


বিনোদন ডেস্ক:মুক্তসংবাদ প্রতিদিন রবিবার, ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১০:৪৮
গাজী মাজহারুল আনোয়ার আর নেই
ফাইল ছবি : গাজী মাজহারুল আনোয়ার

কিংবদন্তি গীতিকার, চলচ্চিত্র পরিচালক, প্রযোজক ও কালজয়ী গানের স্রষ্টা গাজী মাজহারুল আনোয়ার রোববার (৪ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ... রাজিউন)।

গাজী মাজহারুল আনোয়ারের পুত্রবধূ শাহানা মির্জা গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, অসুস্থ অবস্থায় রোববার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে গাজী মাজহারুল আনোয়ারকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। ডাক্তার পরীক্ষা করে বলেন, তার পালস পাওয়া যাচ্ছে না। এর কিছুক্ষণ পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শাহানা মির্জা আরও বলেন, গত কয়েক দিন ধরে এসিডিটির সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। আমরা শনিবার তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাই। রক্ত পরীক্ষা করানো হয়েছিল। রোববার উনার আরও অনেক কিছু পরীক্ষা করার কথা ছিল। কিন্তু সকালে তো তিনি চলে গেলেন।

দীর্ঘ ৬০ বছর ধরে বেতার, টেলিভিশন, সিনেমাসহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রায় ২০ হাজার গান রচনা করেছেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। তার লেখা কালজয়ী গানও অসংখ্য। গীতি কবিতায় অবদান রাখার জন্য ২০০২ সালে একুশে পদক লাভ করেন তিনি। পাঁচবার পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

তার লেখা কিছু কালজয়ী গান হলো— ‘জয় বাংলা, বাংলার জয়’, ‘আছেন আমার মোক্তার আছেন আমার ব্যারিস্টার’, ‘একতারা তুই দেশের কথা বল রে এবার বল’, ‘একবার যেতে দে না আমার ছোট্ট সোনার গাঁয়’, ‘গানের খাতায় স্বরলিপি লিখে’, ‘আকাশের হাতে আছে একরাশ নীল’, ‘শুধু গান গেয়ে পরিচয়’, ‘ও পাখি তোর যন্ত্রণা’ প্রভৃতি। সূত্র: যুগান্তর

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

মিনা পাল থেকে যেভাবে হয়ে উঠেছিলেন নায়িকা কবরী


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক:
শনিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২১, ১১:৫১
মিনা পাল থেকে যেভাবে হয়ে উঠেছিলেন নায়িকা কবরী

ফাইল ছবি

সবাইকে কাঁদিয়ে পরপারে পাড়ি জমালেন বাংলা সিনেমার মিষ্টি মেয়ে কবরী। করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৩ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১২টা ২০ মিনিটে মারা যান এই অভিনেত্রী ও রাজনীতিক।

১৯৫০ সালের ১৯ জুলাই চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে জন্মগ্রহণ করেন কবরী। তার আসল নাম মিনা পাল। বাবা শ্রীকৃষ্ণদাস পাল এবং মা লাবণ্য প্রভা পাল। ১৯৬৩ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সে নৃত্যশিল্পী হিসেবে মঞ্চে উঠেছিলেন তিনি। তারপর টেলিভিশন ও পরে সিনেমায়।

১৯৬৪ সালে সুভাষ দত্তের ‘সুতরাং’ ছবির মাধ্যমে সারাহ বেগম কবরীর অভিনয় জীবন শুরু। চট্টগ্রামের মেয়ে মিনা পাল চলচ্চিত্রের লাল-নীল জগতে পা দিয়েই নতুন নাম পান ‘কবরী’। পরিচালক সুভাষ দত্তই তাকে এই নাম দিয়েছিলেন বলে জানা যায়।

দক্ষ অভিনয় শৈলী দিয়ে ‘মিষ্টি মেয়ে’ হয়ে ওঠেন এই অভিনেত্রী। তারপর জনপ্রিয় নায়িকা হিসেবে চলচ্চিত্র দুনিয়ায় কবরীর শুধুই দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলা।

এরপর অভিনয় করেছেন হীরামন, ময়নামতি, চোরাবালি, পারুলের সংসার, বিনিময়সহ অসংখ্য সিনেমায়। আগন্তুকসহ জহির রায়হান নির্মিত উর্দু ছবি ‘বাহানা’ এবং ভারতের চলচ্চিত্র নির্মাতা ঋত্বিক ঘটকের ছবি ‘তিতাস একটি নদীর নাম’।

কবরী বিয়ে প্রথম করেন চিত্ত চৌধুরীকে। সম্পর্ক বিচ্ছেদের পর ১৯৭৮ সালে তিনি বিয়ে করেন সফিউদ্দীন সরোয়ারকে। ২০০৮ সালে তাদেরও বিচ্ছেদ হয়ে যায়। কবরী পাঁচ সন্তানের মা।

২০০৮ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। যুক্ত ছিলেন অসংখ্য নারী অধিকার ও সমাজসেবামূলক সংগঠনের সঙ্গে। অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৭-তে প্রকাশিত হয়েছে তার আত্মজীবনীমূলক বই ‘স্মৃতিটুকু থাক’।

হঠাৎ খুসখুসে কাশি ও জ্বরে আক্রান্ত হলে করোনার নমুনা পরীক্ষা করান কবরী। ৫ এপ্রিল ফলাফল পজিটিভ আসে। ওই রাতেই তাকে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ৮ এপ্রিল দুপুরে তাকে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে আইসিইউতে নেওয়া হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ১৫ এপ্রিল বিকেলে তাকে লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অবশেষে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চিরবিদায় নিলেন নায়িকা।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

পেলের রেকর্ড ভাঙ্গার দিনে মেসির হ্যাট্রিক


ক্রীড়া ডেস্ক:মুক্তসংবাদ প্রতিদিন 
শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১০:৪১
পেলের রেকর্ড ভাঙ্গার দিনে মেসির হ্যাট্রিক

ফাইল ছবি

গত সোমবার ৬ সেপ্টেম্বর নানা নাটকীয় ঘটনার পর ব্রাজিলের সঙ্গে আর্জেন্টিনার আগের ম্যাচটি স্থগিত করা হয়েছিলো। দর্শকরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিলেন কবে পেলের রেকর্ড ভাঙবেন মেসি সে অপেক্ষার অবসান হলো আজ। আজ শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) বলিভিয়ার বিপক্ষে মুখোমুখি হয়ে ৩-০ গোলের জয় পেয়েছে লিও মেসিরা। তিনটি গোলই এসেছে ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসির পা থেকে।

আর্জেন্টিনার হয়ে আজ প্রথম গোল করেই ছুয়ে ফেলেন ফুটবল গ্রেট পেলেকে। কে জানতো আজই হয়ত তাকে ছাড়িয়ে যাবেন মেসি। কারন নাম টা যে মেসি তাই অবিস্বাস্য বলে কিছু রইলো না। মজার বিষয় ছিলো কিছুদিন আগে পেলে বলেছিলেন মেসি ডান পায়ে গোল করতে পারে না কিন্তু আজ তার রেকর্ড এ ভাগ বসানো গোলটি ই এসেছে মেসির ডান পা থেকে।

আর্জেন্টিনার হয়ে মেসির এটি সপ্তম হ্যাটট্রিক। তার অন্য হ্যাটট্রিকগুলো এসেছে সুইজারল্যান্ড, গুয়েতামালা, ব্রাজিল, পানামা, ইকুয়েডর ও হাইতির বিপক্ষে।

আর্জেন্টিনার রিভারপ্লেট স্টিডিয়ামে প্রথম থেকেই বলিভিয়াকে ধরাশায়ী করে রাখে আর্জেন্টিনা। একের পর এক আক্রমণে বিপর্যস্তু হয়ে পড়ে বলিভিয়া শিবির। যেখানে প্রায় একক আধিপত্য দেখিয়েছে মেসি বাহিনী, আরও নির্দিষ্ট করে বললে মেসি। পেরুও আক্রমণ করেছে, তবে তা ছিল আর্জেন্টিনার অর্ধেকেরও কম। মেসি প্রথম গোলটি পান ১৪ মিনিটের মাথায়। ডি বক্সের তার দুর্দান্ত শট ঠেকাতে পারেননি বলিভিয়া গোলরক্ষক কার্লোস লাম্পে। আর্জেন্টিনার লিড তখন ১-০ গোলে।

তাতে পেলেকে ছুয়ে ফেলেন তিনি। জাতীয় দল ব্রাজিলের হয়ে পেলে করেছেন ৭৭ গোল। অনেক দিন ধরেই পেলেকে ধরার হাতছানি ছিল মেসির সামনে। কিন্তু আর্জেন্টিনার হয়ে আগের চার ম্যাচে গোল পাননি তিনি। ফলে ব্রাজিলিয়ান কিংবন্তিকে ছোয়ার অপেক্ষা বাড়ে তার। সেই অপেক্ষা ফুরাল বলিভিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে। বিরতির আগে আর্জেন্টিনা আরও একটি গোল পেয়েছিল, তবে অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার ক্রস থেকে হওয়া গোলটি রেফারি অফসাইডের কারণে বাতিল করে দেন। এরপর মেসির মতো সুযোগ নষ্ট করেছেন স্কালোনির অন্য শিষ্যরাও। ১-০ গোলের লিড নিয়েই বিরতিতে যায় আর্জেন্টিনা শিবির।

বিরতি থেকে ফিরে আগের মতোই চেপে রাখে বলিভিয়াকে। ৬৪তম মিনিটে আরও একটি গোল পায় আর্জেন্টিনা, সেটিও আসে মেসির পা থেকে। লাওতারো মার্টিনেজ পাস দেন মেসিকে, মেসি প্রথম চেষ্টার বল জালে জড়াতে পারেননি। গোলরক্ষক কার্লোস পিএসজি জাদুকরের চেষ্ঠা প্রতিহত করেন। কিন্তু তার কাছ থেকে বল ফিরে আসলে ফিরতি শটে বল জালে জড়ান মেসি। মেসি তৃতীয় গোলটি করেন ম্যাচের একেবারে শেষ দিকে। আর্জেন্টিনার হয়ে তার গোলসংখ্যা এখন ৭৯টি।

এ জয়ের ফলে কনমেবল অঞ্চলের কাতার বিশ্বকাপ বাছাইয়ে ৮ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট হলো আর্জেন্টিনার। এর মধ্যে তিনটি ম্যাচে ড্র ও পাঁচটি ম্যাচে জয়ে পেয়েছে তারা। খেলা শেষে উদযাপনের পরিবর্তে কান্না ভেঙ্গে পড়েন লিএ মেসি কারন ছিলো করোনা কারনে দীর্ঘ অপেক্ষার পর মাঠে ফিরেছে দর্শকরা তাদের সাথে কোপার চ্যাম্পিয়ন উদযাপন না করতে পেরে আজ ম্যাচ শেষে সে উদযাপন করে নিয়েছে টিম আর্জেন্টিনা।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / khurshedalm@msprotidin.com
Share on Facebook