ঢাকা সোমবার, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৮ আগষ্ট, ২০২২
Mukto Sangbad Protidin

সৌদির বাদশাহ ইরানের সাথে সরাসরি আলোচনা করতে চায়


আন্তর্জাতিক ডেস্ক:মুক্তসংবাদ প্রতিদিন শুক্রবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১১:৩৮
সৌদির বাদশাহ ইরানের সাথে সরাসরি আলোচনা করতে চায়
ফাইল ছবি

ইরানের সাথে সরাসরি আলোচনা করতে চান বলে জানিয়েছেন সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান। তিনি চান ইরানি ও সৌদি কর্তৃপক্ষের পাস্পারিক বিশ্বাস প্রতিষ্ঠার জন্য সকল আলোচনা সরাসরি অনুষ্ঠিত হোক। বুধবার মিডল ইস্ট আই এমন সংবাদ প্রকাশ করেছে।

সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে অনেক পুরোনো বৈরী সম্পর্কের কারণে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। এমন তিক্ত সম্পর্ক থাকার কারণে দু’পক্ষই আলোচনার জন্য তেমন কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। এরপর বুধবার জাতিসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদে দেয়া (আগে রেকর্ডকৃত ভার্চুয়াল) ভাষণে সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বলেন, ইরান আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র। 

আমরা আশা করি, সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যকার এ প্রাথমিক আলোচনার ফলে আমাদের মধ্যে পাস্পারিক বিশ্বাস সৃষ্টি হবে। উভয় দেশের সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধা ও পরস্পরের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার নীতি হবে এ বিশ্বাসের মূল ভিত্তি।
 
সৌদি বাদশাহ আরো বলেন, ইরান যাতে পারমাণবিক শক্তি অর্জন করতে না পারে তার জন্য যে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টা ছিল তাকে আমরা সমর্থন করি। যদিও ইরান সবসময় বলে থাকে যে তাদের পরমাণু কর্মসূচি শান্তিপূর্ণ তবুও আমরা দেখেছি তারা কিভাবে তাদের প্রতিজ্ঞার পরিপন্থী কাজ করে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ইরান ও সৌদি আরব মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলের প্রধান আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী দেশ। সিরিয়া ও ইয়েমেনে তারা অনেক দিন ধরে যুদ্ধে লিপ্ত আছে। এ যুদ্ধে উভয় দেশের মদদপুষ্ট যোদ্ধারা পরস্পরের বিরুদ্ধে লড়ছে। এ কারণে ২০১৬ সালে দু’দেশের মধ্যকার কূটনীতিক সম্পর্ক ছিন্ন হয়। অল্প কিছু দিন আগে মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে উত্তেজনা প্রশমনের লক্ষ্যে দুটি দেশ ইরাকে বৈঠক করে। সূত্র : মিডল ইস্ট আই

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

বিল গেটসের মেয়ে বিয়ে করতে যাচ্ছে এক মুসলিম তরুণকে


আন্তর্জাতিক ডেস্ক:মুক্তসংবাদ প্রতিদিন
বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১, ১০:০৯
বিল গেটসের মেয়ে বিয়ে করতে যাচ্ছে এক মুসলিম তরুণকে

সংগৃহীত ছবি

মা-বাবার বিচ্ছেদের জের না কাটতেই বিয়ে করতে চলেছেন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ধনকুবের ও মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের মেয়ে জেনিফার গেটস। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় সম্প্রতি নিজের প্রাক বিবাহ পার্টিও সম্পন্ন করেছেন বিশ্বের কোটি  তরুণের স্বপ্নকন্যা জেনিফার। 

সম্প্রতি নিজের ব্যাচেলর পার্টির বেশ কিছু ছবিও শেয়ার করেছিলেন বিল-মেলিন্ডার বড় মেয়ে জেনিফার। সেখানে তাকে বেশ উৎফুল্ল দেখা গেছে।
 
নিজের আসন্ন বিয়ে নিয়ে ২৫ বছর বয়সী জেনিফার জানান, ভালোবাসার মানুষ নায়েল নাসেরকে বিয়ে করার জন্য তার তর সইছে না। কিন্তু কে এই নায়েল নাসের, যার পাণিগ্রহণের জন্য আকুল হয়ে অপেক্ষায় আছেন বিল গেটস তনয়া?

জানা গেছে, ৩০ বছর বয়সী মিসরীয় মুসলিম যুবক নায়েল নাসের একজন পেশাদার ঘোড়দৌড়বিদ।

ক্যালিফোর্নিয়ার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় জেনিফার গেটসের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। খুব শিগশিরই তা প্রণয়ে রূপ নেয়। 

যুক্তরাষ্ট্রের ইলিনয় অঙ্গরাজ্যের শিকাগো শহরে জন্ম হলেও নাসেরের শৈশব কেটেছে কুয়েতে। 

প্রায় ৬০ বছর পর ২০২০ সালের অলিম্পিকের (টোকিও) চূড়ান্ত পর্বে মিসরের জায়গা করে নেওয়ার ক্ষেত্রে নাসেরের অনন্য ভূমিকা রয়েছে। বিল গেটসের কন্যা জেনিফারও অংশ নিয়েছেন বিভিন্ন পেশাদার ঘৌড়দৌড় প্রতিযোগিতায়।

চলতি বছরের শুরুতে নিজেদের আংটি বদলের খবর দিয়েছিলেন জেনিফার। তবে চলতি বছরের মে মাসে বাবা-মায়ের বিচ্ছেদের পরও তার আঁচ নিজের জীবনে লাগতে দেননি বিল-মেলিন্ডা তনয়া জেনিফার।

বিল আর  মেরিন্ডা যখন নিজেদের ২৭ বছরের সংসার জীবনের বিচ্ছেদের ব্যাপারে একমত হয়েছিলেন, তখন জেনিফা বিয়ের সিদ্ধান্তে অটল। 

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

টিকাদান কর্মসূচিতে কেন্দ্র ও লোকবল বাড়াতে হবে


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক:
বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১, ১০:৪৯
টিকাদান কর্মসূচিতে কেন্দ্র ও লোকবল বাড়াতে হবে

সংগৃহীত ছবি

করোনার টিকা পাওয়া নিয়ে যে অনিশ্চয়তা ছিল, তা কিছুটা দূর হয়েছে। এর আগে যে পরিমাণ টিকা পাওয়া গেছে এবং যে পরিমাণ টিকা আসার পথে আছে, তা প্রয়োজনের তুলনায় কম হলেও পরিস্থিতি এখন অপেক্ষাকৃত স্বস্তিদায়ক। বিশেষ করে জাপান থেকে অক্সফোর্ড–অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা আসার পর প্রথম ডোজ নিয়ে যেসব মানুষ অপেক্ষা করেছিলেন, তাঁরা এখন দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারছেন।

অন্যদিকে টিকা দেওয়া নিয়ে শুরুতে অনেকের মধ্যে যে সংশয় ও দ্বিধাদ্বন্দ্ব ছিল, তা-ও অনেকটা কেটে গেছে। টিকাকেন্দ্রগুলোয় বিপুলসংখ্যক মানুষের ভিড় প্রমাণ করে, তাঁরা টিকা নিতে আগ্রহী। কিন্তু সাধ আর সাধ্যের মধ্যে বিরাট ফারাক রয়ে গেছে। সরকার এখন পর্যন্ত যে পরিমাণ টিকাকেন্দ্র করেছে, সেটি প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। এ কারণে বিভিন্ন টিকাকেন্দ্রে উপচে পড়া ভিড় লক্ষ করা যাচ্ছে। গতকাল একটি পত্রিকার পাতায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন হাসপাতালের ফটকে টিকাপ্রার্থী মানুষের দীর্ঘ সারির ছবি ছাপিয়েছে। এ ধরনের ভিড়ে কারও পক্ষে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা সম্ভব নয়। অনেকেরই টিকা নিতে এসে ফিরে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এর প্রতিকার কী? প্রতিকার হলো অধিকসংখ্যক টিকাকেন্দ্র স্থাপন। অধিকসংখ্যক টিকাকেন্দ্র পরিচালনার জন্য অধিক লোকবলেরও প্রয়োজন হবে। কিন্তু সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগ অজ্ঞাত কারণে ‘ধীরে চলা নীতি’ অনুসরণ করে চলেছে। সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির আওতায় সারা দেশের শহরে ও গ্রামে ১ লাখ ২০ হাজার স্থায়ী টিকাকেন্দ্র আছে। হাম-রুবেলা বা অন্য কোনো টিকার বিশেষ প্রচারণার সময় এসব কেন্দ্র থেকে এক দিনে প্রায় দুই কোটি শিশুকে টিকা দেওয়া হয়।

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, এ পর্যন্ত দেশে টিকা এসেছে ২ কোটি ১৫ লাখ ৪৫ হাজার ডোজ। ২৫ জুলাই পর্যন্ত নিবন্ধন করেছেন ১ কোটি ২১ লাখ ৭০ হাজার ৪৪৫ জন। টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছেন ৭৫ লাখ ৬০ হাজার ৩৭২ জন। টিকার দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ৪৩ লাখ ৫ হাজার ৯৬৫ জন। সে ক্ষেত্রে সরকারের প্রথম কর্তব্য হওয়া উচিত, প্রথম ডোজ পাওয়া ব্যক্তিদের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া। তাহলে করোনার টিকা কেন দিনে তিন লাখ ডোজ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলো? ভারতসহ যেসব দেশ অধিকসংখ্যক টিকা দিয়েছে, সেসব দেশে সংক্রমণের হার দ্রুত কমিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। অতএব, টিকা প্রদানে ধীরগতির কোনো যুক্তি আছে বলে মনে করি না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দিনে ৩ লাখ ৬০ হাজার মানুষকে টিকা দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে, যা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকা কর্মসূচির আওতায় আনতে হলে এই লক্ষ্যমাত্রা কমপক্ষে ১০ গুণ বাড়াতে হবে। দিনে কমপক্ষে ৩৫ লাখ মানুষকে টিকা দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত সোমবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে যোগ দিয়ে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে টিকাদান কর্মসূচি নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশনা যত দ্রুত কার্যকর করা যাবে, ততই মঙ্গল।

বিধিনিষেধের মধ্যেও করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার ঊর্ধ্বমুখী, মৃত্যু ও সংক্রমণের রেকর্ড হচ্ছে। এই অবস্থায় টিকা কর্মসূচি জোরদার করার বিকল্প নেই। সূত্র: প্রথম আলো

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম
Share on Facebook

সর্বশেষ - আন্তর্জাতিক