ঢাকা শুক্রবার, ১০ আষাঢ় ১৪২৮, ২৫ জুন, ২০২১
Mukto Sangbad Protidin

যুদ্ধ থেমে গেলেও আতঙ্কে আছে ইসরায়েল


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক: সোমবার, ২৪ মে, ২০২১, ১১:০২
যুদ্ধ থেমে গেলেও আতঙ্কে আছে ইসরায়েল
ফাইল ছবি

 

গোলাগুলি নেই, বোমবর্ষণও নেই। তারপরও আতঙ্ক কাটছে না। ইসরায়েলের বিভিন্ন শহরে এখনো আতঙ্কে দিন কাটছে সাধারণ মানুষের। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিশেষত মিশ্র অঞ্চলগুলিতে ব্যাপক ভয় কাজ করছে ইসরায়েলের মধ্যে। বর্তমানে ফিলিস্তিনিদের দোকান থেকে রুটি পর্যন্ত কিনছেন না ইসরায়েলি নাগরিক। ইসরায়েলির দোকানে যাচ্ছেন না ফিলিস্তিনিরা। একের অপরের প্রতি নতুন করে বিশ্বাস গড়তে অনেক সময় লাগবে।

ইসরায়েলের মিশ্র অঞ্চলের বহু মানুষ বলেছেন, যুদ্ধবিরতি স্থায়ী সমাধান নয়। মূল সমস্যার সমাধান না হলে ফের লড়াইয়ের সম্ভাবনা আছে। সহিংসতার সম্ভাবনা এখনো উড়িয়ে দেয়া যায়না।

রাজধানী তেল আবিবের প্রান্তে বহু ফিলিস্তিনি থাকেন। সাংবাদিকদের তারা জানিয়েছেন, রাস্তায় নামলে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে। স্বাধীনভাবে চলাফেরা পর্যন্ত করা যাচ্ছে না। জেরুজালেমের পূর্ব অংশের ছবিও একই রকম। সেখানেও বহু ফিলিস্তিনি বাস করেন। কিছুদিন আগে সেখান থেকে হাইফা শহরে গেছেন সামাহ।
 
সাংবাদিকদের তারা জানিয়েছেন, জেরুজালেমে নিজের কৌমের মধ্যে থাকার সুযোগ থাকলেও, হাইফাতে সেই সুযোগ নেই। হাইফার জনগণকে জাতিবিদ্বেষের শিকার হতে হয়।

অভিযোগ, পুলিশও বিদ্বেষপূর্ণ মনোবভাব দেখায়। রাস্তায় বের হলেই নানা প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়। বস্তুত, লড়াইয়ের সময় এই অঞ্চলগুলিতে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছিল। দুই গোষ্ঠীই একে অপরের উপর আক্রমণ করেছিল।

এদিকে, দুই দিন যুদ্ধবিরতির পর খুলে দেওয়া হয়েছে মন্দির মাউন্ট। ওই মন্দিরের পাশেই আল আকসা মসজিদ। পুলিশ দর্শনার্থীদের এসকর্ট করে নিয়ে যাচ্ছে মন্দিরে। এই অঞ্চলটিতে গত সপ্তাহে ব্যাপক গন্ডগোল হয়েছিল এবং মসজিদ ঘিরে রেখেছিল পুলিশ।

মুসলমানদের কাছে এই অঞ্চলটি অনেক পবিত্র। তাই নতুন করে মসজিদ খুলে দেওয়ার ফলে সেখানে সামান্য উত্তেজনা হয়েছিল। তবে ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনি দুই অঞ্চলের প্রশাসনিক কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, যুদ্ধবিরতি ঘোষণার পর এখন পর্যন্ত বড় ধরণের কোনো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি। সূত্র: ডয়েচে ভেলে

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

রাশিয়ার নতুন স্পুটনিক লাইট এক ডোজই রুখে দেবে করোনার সব ভ্যারিয়েন্ট


আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
শুক্রবার, ০৭ মে, ২০২১, ১০:৩৪
রাশিয়ার নতুন স্পুটনিক লাইট এক ডোজই রুখে দেবে করোনার সব ভ্যারিয়েন্ট

সংগৃহীত ছবি


প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে নতুন ঘোষণা দিল রাশিয়া। তাদের উদ্ভাবিত স্পুটনিক-ভি টিকার আরেকটি সংস্করণ এনেছে। এক ডোজের এই টিকার নাম দেওয়া হয়েছে স্পুটনিক লাইট। ৬ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার টিকাটির অনুমোদন দেয় রাশিয়া।

মস্কো বলছে, করোনা প্রতিরোধে এক ডোজের এই টিকা ৮০ শতাংশ কার্যকর। লড়াই করতে পারবে করোনার সব ভ্যারিয়েন্টের সঙ্গে। তবে স্পুটনিকের ২ ডোজ টিকার চেয়ে ১ ডোজের কার্যকারিতার কিছুটা ব্যবধান থাকবে।

রাশিয়ার টিকা প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান গামালিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউটের তৈরি স্পুটনিক লাইটের অর্থায়ন করেছে দেশটির ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড-আরডিআইএফ।
 
এক বিবৃতিতে সংস্থাটি জানায়, দুই ডোজের টিকা স্পুটনিক ভি টিকা ৯১ দশমিক ৬ শতাংশ কার্যকার হলেও স্পুটনিক লাইট করোনা প্রতিরোধে ৮০ শতাংশ কার্যকর প্রমাণ পাওয়া গেছে। গত বছরের ৫ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত চলা পরীক্ষার মাধ্যমেই স্পুটনিকের এক ডোজকে অনুমোদন দিয়েছে মস্কো।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ইতিমধ্যে জানিয়েছেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশের চেয়ে আমাদের এ ভ্যাকসিন অনেক উন্নত। এই ভ্যাকসিন ব্যবহারে কোনও ঝুঁকি নেই। এটা শুধু আমাদের কথা নয়, ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিশেষজ্ঞরাও আমাদের ভ্যাকসিনের প্রশংসা করেছেন। বৈশ্বিক এই মহামারী মোকাবিলায় আমাদের ভ্যাকসিন সবার জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়েছে।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

কাটপিস করা হয়েছে আমার বক্তব্য: মির্জা আব্বাস


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক:
রবিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২১, ০৪:৩৫
কাটপিস করা হয়েছে আমার বক্তব্য: মির্জা আব্বাস

ফাইল ছবি

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, মিডিয়ায় আমার বক্তব্য কাটপিস করা হয়েছে। ইলিয়াস আলীকে সামনে রেখে হঠাৎ করে কেন আমাকে টার্গেট করা হলো আমি জানি না। আমার নামে যে বক্তব্য প্রচার করা হয়েছে তা আমার নয়। এর দায়িত্ব আমার এবং আমার দলের নয়।

আজ বিকেল তিনটায় শাহজাহানপুরে নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা আব্বাস বলেন, ১৭ এপ্রিলের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে পরিস্থিতি আমাকে বাধ্য করেছে এই সংবাদ সম্মেলনে ডাকতে। বিএনপির বিরুদ্ধে যত কথা দরকার লেখা যাবে কিন্তু আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে লেখা যাবে না। সংবাদপত্রের এমন স্বাধীনতা জিয়াউর রহমান দেননি। আধা ঘণ্টার মধ্যে ছড়িয়ে যাওয়া এটাও একটা ষড়যন্ত্র।

‘বিএনপি নেতারা ইলিয়াস আলীকে গুম করেছে আমি স্থায়ী কমিটির সদস্য এমন কথা বলতে পারি? আমি এমন কোনো কথা বলিনি। আমার বক্তব্য কাটপিস করে সামনের অংশ পেছনের অংশ বাদ দিয়ে নিজেদের ইচ্ছে মতো লেখা লিখেছে। হঠাৎ মিডিয়া কেন আমাকেই টার্গেট করে এ ধরনের কাজ করলো তা আমি জানি না।’

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম
Share on Facebook
×