ঢাকা সোমবার, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৮ আগষ্ট, ২০২২
Mukto Sangbad Protidin

থানার ওসি চাইলেই হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হতে পারেন: আইজিপি


এমএস.প্রতিদিন ডেস্ক: শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১১:৩৬
থানার ওসি চাইলেই হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হতে পারেন: আইজিপি
ফাইল ছবি

পুলিশের মহাপরিদর্শক ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, থানার ওসি চাইলেই হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা হতে পারেন। মানুষের জন্য কাজ করে তাদের হৃদয় ও মন জয় করতে পারেন। এটা টাকা দিয়ে কেনা যায় না।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) ঢাকা রেঞ্জের আগস্ট মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আইজিপি বলেন, পুলিশ যত ভালো কাজ করুক না কেন একটি খারাপ কাজ সব অর্জনকে নষ্ট করে দেয়। সমাজ পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা ও অপরাধ পরিস্থিতিরও পরিবর্তন হয়। সর্বদা সমাজের পরিবর্তনশীল চাহিদার প্রতি লক্ষ্য রেখে পুলিশিং কার্যক্রম চালু রাখতে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন তিনি।

জুনিয়রদের যোগ্য করে গড়ে তোলা সিনিয়রদের দায়িত্ব উল্লেখ করে আইজিপি বলেন, জুনিয়রদের জন্য ভালো উদাহরণ তৈরি করতে হবে। ভালো কাজে তাদেরকে মোটিভেট করতে হবে। তাদেরকে সুপারভাইজ করতে হবে। চাকরিতে ‘প্যাশন’ আনতে হবে। প্রত্যেক পুলিশ সদস্যের সম্মান ও মর্যাদাবোধ থাকতে হবে।

বিট পুলিশিং একটি কার্যকর পদ্ধতি জানিয়ে পুলিশপ্রধান বলেন, বঙ্গবন্ধু প্রতিটি ইউনিয়নে থানা করার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন মূলত বিট পুলিশিং সে লক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষণা করেছিলেন; প্রতিটি গ্রামে শহরের সুবিধা পৌঁছে দেওয়া হবে। এক্ষেত্রে প্রতিটি ইউনিয়নে অপরাধ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় বিট পুলিশিং কার্যকর অবদান রাখতে পারে।

আইজিপি বলেন, কোনো পুলিশ সদস্য যদি অপরাধের সঙ্গে জড়িত থাকে তাহলে সেটা বন্ধ করতে হবে। পুলিশে কোনো অপরাধীর জায়গা নেই। ঢাকা রেঞ্জের বিভিন্ন ইনোভেশন কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করে তিনি অন্যান্য ইউনিটেও এ ধরনের ইনোভেশনের চর্চার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। সূত্র: ইত্তেফাক

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

মেঘনা নদীর তীর গিলে খাচ্ছে আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ


মনিরুজ্জামান মনির, ব্রাহ্মণবাড়িয়াঃ  
সোমবার, ২২ মার্চ, ২০২১, ০৬:০৯
মেঘনা নদীর তীর গিলে খাচ্ছে আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ

ছবি: মুক্তসংবাদ প্রতিদিন

আশুগঞ্জ তাপ বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ (এপিএসসিএল) এর বিরুদ্ধে মেঘনা নদীতে বালু ভরাট করে নদী তীর দখলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়দের অভিমত এভাবে তীর দখল করলে নদীপথের গতি বাধাগ্রস্থ হতে পারে। নৌ-বন্দর নগরী তিলোত্তমা বাণিজ্যিক এলাকা পড়তে পারে নদী ভাঙ্গনের কবলে।

সোহাগপুর গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা হাজী মোঃ নাছির মিয়া নদী রক্ষা কমিশমন চেয়ারম্যান বরাবরে এক লিখিত অভিযোগে উল্লেখ্য, সরকারি ও মালিকানাধীন এপিএসসিএল কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি বাহাদুরপুর, সোহাগপুর মৌজায় মেঘনার পার্শ্ববর্তী নদীর তীরে ৩শ’ একর ফসলী জমি অধিগ্রগহণের চেষ্টা করে স্থানীয় এলাকাবাসীর প্রতিরোধের মুখে ভূমি অধিগ্রহণে ব্যর্থ হয়ে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কর্মকর্তারা বিকল্প ভাবনায় মেঘনা নদীর পাড়ের কয়েকশত একর জায়গা অবৈধভাবে বালু দিয়ে ভরাট করে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সীমানা বর্ধিত করছে। 

উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য অভিযোগকারী নাছির মিয়া আশুগঞ্জ বন্দরে ধান চালের ব্যবসায়ী ও একজন কৃষক। নাছির মিয়া এ প্রতিবেদককে বলেন, বালু ভরাট অংশের পশ্চিম-উত্তর পাশ দিয়ে সোহাগপুর গ্রামের দিকে বড় খাল আছে এই খাল দিয়ে একসময় মানুষ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরে যাতায়াত করতো। বর্তমানে সিলেট, জামালপুর, ময়মনসিংহ, বরিশাল, গোপালগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা থেকে বন্দরে আসা ধান চালের নৌকা এই খালে রাখা হয়। তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ মেঘনা নদীর পাড় ভরাটের সাথে ওই খালও দখলে নিয়েছে। অবৈধভাবে মেঘনা তীর দখলের কারণে নদীর গতিপথ পরিবর্তিত হয়ে আশুগঞ্জ নৌবন্দর এলাকায় ব্যাপক নদী ভাঙ্গন দেখা দেবে। মেঘনা নদীতে জেগে উঠা চরসোনারামপুর গ্রামটি নদীতে বিলীন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে এলাকাবাসীর অভিমত। 

এই গ্রামের ২ হাজারেরও বেশি জেলে পরিবারের বসবাস। তাদের বাড়িঘর সহায়-সম্ভল আশুগঞ্জ এলাকার একমাত্র শ্মশান ও চরে অবস্থিত ২৩০ কেভি ক্ষমতা সম্পন্ন আশুগঞ্জ-সিরাজগঞ্জ জাতীয় গ্রিডের বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের টাওয়ার নদীতে বিলীন হতে পারে বলে সাধারণ মানুষদের ধারণা। বিদ্যুৎ কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ কৌশলে কেন্দ্রের রেষ্ট হাউজের পেছনে তাদের সীমানা প্রাচীরের বাইরে মেঘনা নদীর পাড়ে এক থেকে দেড় কিলোমিটারেরও বেশি এলাকাজুড়ে নতুন করে প্রতিরক্ষা দেয়াল নির্মাণ করছে। 

মেঘনা নদী থেকে বালু উত্তোলন করে প্রাচীরের ভিতরে ফেলে জায়গা দখলে নিয়েছে। জনা যায়, স্থানীয় জনৈক একজন ঠি^কাদার সেখানে সাড়ে সাত কোটি টাকার বালু ভরাটের কাজ পেয়েছেন। মেঘনাপাড়ে এপিএসসিএলের কোনও জায়গা নেই বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। 

সরেজমিন ঘটনাস্থল ঘুরে দেখা যায়, আশুগঞ্জ বন্দর থেকে প্রায় দুই কিলোমিটার উত্তর দিকে এপিএসসিএলের রেষ্ট হাউজের পেছনে সীমানা প্রাচীর থেকে ১শ’ থেকে ২শ’ ফুট প্রস্থের দুই থেকে আড়াই হাজার ফুট দৈর্ঘ্যরে নতুন করে দেয়াল নির্মাণ করে বালু ভরাট করা হয়েছে।

সোহাগপুর এলাকার নদীপাড়ের ফসলী জমি নদীর মাঝে জেগে উঠা চরসোনারামপুর গ্রাম সেখানে কয়েক জেলার বিদ্যুৎ সঞ্চালন টাওয়ার ও আশুগঞ্জ বন্দর ব্যাপকভাবে ভাঙ্গনের কবলে পড়বে। এ মন্তব্য পরিবেশবাদী সংগঠন নোঙরের আশুগঞ্জ উপজেলার আহবায়ক ইকরামুল ইসলাম চৌধুরী। আশুগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি জহিরুল ইসলাম (জারু মিয়া) জানায়, আমরা অনেকেই তাদের সাথে ২/৩বার নদীর তীর ও খাল ভরাটের ব্যাপারে বৈঠক করেছি। কিন্তু কোন সুরাহা হয়নি। তারা বলে একটা করে আরেকটা।

আমরা জেলা প্রশাসকের কাছেও ডকুমেন্টারি জমা দিয়েছি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সুপারেন্টেন ইঞ্জিনিয়ার মোঃ সাইফুল ইসলাম জানায়, ১৯৯৬ সালে নদীর তীরেই একোয়ার করা জমি ছিল এবং আগে বিদ্যুৎ ঘাটতি ছিল না এখন চাহিদা বেশি, কিছু বিদ্যুৎ ঘাটতিও আছে। আমরা সরকারি নির্দেশনাতেই ভরাট করছি। 

আশুগঞ্জ বিআইডব্লিউডি এর উপপরিচালকের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন একটা কমিটি গঠন করেছিলাম কিন্তু এসিল্যান্ড সাহেব আমাকে বাদ দিয়ে সার্ভে করেছে। উনাকে একথা বলার পরে উনি বলেন, পুনরায় আপনাদেরকে নিয়ে সার্ভে করবো। আশুগঞ্জ ইউএনও অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন, বর্তমানে নদীর তীর ও খাল ভরাটের কাজ বন্ধ রয়েছে। এসিল্যান্ড ফিরোজা পারভীনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / কে. আলম

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ দ্রুত নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে


এম.এস প্রতিদিন ডেস্ক:
মঙ্গলবার, ৩১ আগষ্ট, ২০২১, ০৯:৩৫
স্বাস্থ্য অধিদপ্তর অ্যাস্ট্রাজেনেকার দ্বিতীয় ডোজ দ্রুত নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে

ফাইল ছবি

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনার প্রথম ডোজ টিকা নিয়ে যারা নির্ধারিত সময়ে দ্বিতীয় ডোজ পাননি, তাদের দ্রুত যেকোনো কেন্দ্র থেকে ওই ডোজ দিতে নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

আজ মঙ্গলবার (৩১ আগস্ট) টিকা ব্যবস্থাপনা টাস্কফোর্স কমিটির সদস্য সচিব ও অধিদপ্তরের লাইন ডিরেক্টর ডা. মো. শামসুল হকের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি কোভিড-১৯ (অ্যাস্ট্রাজেনেকা) টিকাদান শুরুর পর, সরবরাহের স্বল্পতার জন্য রেজিস্ট্রেশনকৃত জনগণের একটি অংশ প্রথম ডোজ টিকা নিয়ে দ্বিতীয় ডোজের জন্য দীর্ঘদিন অপেক্ষা করছেন।

বর্তমানে এ টিকার পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায়, দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষমাণদের দ্রুত টিকাদানের জন্য পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। প্রথম ডোজ টিকা (অ্যাস্ট্রাজেনেকা) নেওয়াদের টিকা কার্ড প্রদর্শনপূর্বক, প্রাপ্যতা সাপেক্ষে যে কোনো কেন্দ্র থেকেই অক্সফোর্ডের দ্বিতীয় ডোজ টিকা দিতে হবে এবং কিউআর কোড স্ক্যান করে উক্ত তথ্য হালনাগাদ করতে হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, এইচআই, এএইচআই, স্বাস্থ্য সহকারী এবং পরিবার কল্যাণ সহকারীরা বাড়ি পরিদর্শনের সময় দ্বিতীয় ডোজ টিকা থেকে বাদ পড়া ব্যক্তিদের টিকা দেওয়ার কথা জানাবেন, দ্রুত টিকা নিতে উৎসাহিত করবেন। সরবরাহকৃত কোভিড-১৯ (অ্যাস্ট্রাজেনেকা) টিকা থেকে দ্বিতীয় ডোজের পাশাপাশি প্রথম ডোজ দিতে হবে।

আগামী ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে অবশ্যই অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রথম ডোজ দেওয়া শেষ করতে হবে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সব পর্যায়ে, প্রতিদিন ভিএলএমআইএসের মাধ্যমে টিকা পাওয়া, টিকা দেওয়া এবং বর্তমান মজুদের তথ্য নিয়মিত ও সঠিকভাবে হালনাগাদ করতে হবে। জরুরি ভিত্তিতে এসব পদক্ষেপ বাস্তবায়নের ব্যবস্থা জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

মুক্তসংবাদ প্রতিদিন / khurshedalm@msprotidin.com
Share on Facebook